গালিভার’স ট্রাভেলস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(গালিভার'স ট্রাভেলস থেকে ঘুরে এসেছে)
গালিভার'স ট্রাভেলস
Gullivers travels.jpg
গালিভার'স ট্রাভেলস বইটির প্রথম সংস্করণ
জোনাথন সুইফট
মূল শিরোনাম ট্রাভেলস ইনটু সেভারেল রিমোট নেশনস অফ দ্য ওয়ার্ল্ড, ইন ফোর পার্টস। বাই লেমুয়েল গালিভার, ফার্স্ট আ সার্জন, অ্যান্ড দেন আ ক্যাপ্টেন অফ সেভারেল শিপস
দেশ যুক্তরাজ্য
ভাষা ইংরেজি
ধরণ ব্যঙ্গ, কল্প-উপন্যাস
প্রকাশক বেঞ্জামিন মোট
প্রকাশনার তারিখ ১৭২৬
মিডিয়ার ধরণ মুদ্রণ

গালিভার'স ট্রাভেলস (ইংরেজি: Gulliver's Travels, গালিভারের ভ্রমণবৃত্তান্ত) হল অ্যাংলো-আইরিশ লেখক ও ধর্মযাজক জোনাথন সুইফট রচিত একটি ইংরেজি উপন্যাস। বইটির পুরো নাম ট্রাভেলস ইনটু সেভারেল রিমোট নেশনস অফ দ্য ওয়ার্ল্ড, ইন ফোর পার্টস। বাই লেমুয়েল গালিভার, ফার্স্ট আ সার্জন, অ্যান্ড দেন আ ক্যাপ্টেন অফ সেভারেল শিপস (ইংরেজি: Travels into Several Remote Nations of the World, in Four Parts. By Lemuel Gulliver, First a Surgeon, and then a Captain of several Ships)। বইটি ১৭২৬ সালের ২৮ অক্টোবর প্রথম প্রকাশিত হয়। ১৭৩৫ সালে বইটির সংস্করণ করা হয়। এই উপন্যাসে সুইফট মানব চরিত্রকে ব্যঙ্গ করেছেন এবং সাহিত্যের প্রচলিত ভ্রমণবৃত্তান্ত ধারাটির প্যারোডি করেছেন। গালিভার'স ট্রাভেলস সুইফটের সবচেয়ে বিখ্যাত রচনা। এটিকে ইংরেজি সাহিত্যের একটি ধ্রুপদি গ্রন্থ মনে করা হয়। পরবর্তীকালে এই উপন্যাস অবলম্বনে একাধিক নাটক ও চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছিল।

বইটি প্রকাশমাত্রই জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। ১৭২৬ সালে জন গে সুইফটকে লেখা একটি চিঠিতে বলেছেন, "ক্যাবিনেট কাউন্সিল থেকে নার্সারি - সর্বত্রই এই বই পঠিত হয়।"[১] বইটি কখনই আউট অফ প্রিন্ট হয়নি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gulliver's Travels: Complete, Authoritative Text with Biographical and Historical Contexts, Palgrave Macmillan 1995 (p. 21). The quote has been misattributed to Alexander Pope, who wrote to Swift in praise of the book just a day earlier.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

অনলাইন পাঠ্য[সম্পাদনা]