এম১৬ রাইফেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এম১৬ রাইফেল
M16a1m16a2m4m16a45wi.jpg
ওপর থেকে নিচে: এম১৬এ১, এম১৬এ২, এম৪এ১, এম১৬এ৪
প্রকার অ্যাসল্ট রাইফেল
উদ্ভাবনকারী  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
ব্যবহার ইতিহাস
ব্যবহারকাল ১৯৬৩-বর্তমান
ব্যবহারকারী ব্যবহারকারী দেখুন
যুদ্ধে ব্যবহার ভিয়েতনাম যুদ্ধ-বর্তমান
উৎপাদন ইতিহাস
নকশাকারী
নকশাকাল ১৯৫৭
উৎপাদনকারী
উৎপাদনকাল ১৯৬০-বর্তমান
উৎপাদন সংখ্যা প্রায় ৮০ লক্ষ [২]
সংস্করণসমূহ প্রকারভেদ দেখুন
তথ্যাবলি (এম১৬এ২)
ওজন ৭.৮ পা (৩.৫ কেজি) (লোডহীন অবস্থায়)
৮.৭৯ পা (৪.০ কেজি) (লোড অবস্থায়)
দৈর্ঘ্য ৩৯.৬২৫ ইঞ্চি (১,০১০ মিমি)
ব্যারেলের দৈর্ঘ্য ২০ ইঞ্চি (৫০৮ মিমি)

কার্টিজ ৫.৫৬x৪৫এমএম ন্যাটো
কার্যপদ্ধতি/অ্যাকশন গ্যাস-চালিত, ঘূর্ণায়মান বোল্ট
গুলির হার সর্বোচ্চ প্রতি মিনিটে ১২-১৫ রাউন্ড, আধা স্বয়ংক্রিয় হলে প্রতি মিনিটে ৪৫-৬০ রাউন্ড, এবং স্বয়ংক্রিয় অবস্থায় প্রতি মিনিটে ৭০০-৯৫০ রাউন্ড (চাক্রিক হারে)
নিক্ষেপণ বেগ প্রতি সেকেন্ডে ৩,১১০ ফুট (৯৪৮ মিটার)[৩]
কার্যকর পাল্লা ৫৫০ মিটার (বিন্দু টার্গেট), ৮০০ মিটার (স্থান টার্গেট)
ফিডিং বিভিন্ন ধরনের স্ট্যানাগ ম্যাগাজিন

এম১৬ (ইংরেজি: M16) (আনুষ্ঠানিক নাম: রাইফেল, ক্যালিবার ৫.৫৬ এমএম, এম১৬) হচ্ছে এআর-১৬ রাইফেলের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীতে ব্যবহৃত নাম। আর্মালাইট কোম্পানির কাছ থেকে কোল্ট এআর-১৬ রাইফেলের স্বত্বাধিকার ক্রয় করার পর রাইফেলটির আধা স্বয়ংক্রিয় সংস্করণ উৎপাদন শুরু করে যা পরবর্তীর্তে এম১৬ রাইফেল নামে পরিচিত হয়। রাইফেলটি গেরিলা ও সরাসরি যুদ্ধের উপযোগী করে তৈরি করা হয়েছে। রাইফেলটির ৫.৫৬x৪৫এমএম ন্যাটো কার্টিজ গুলি আঘাতে সময় প্রচণ্ড রকমের শক্তি ও হাইড্রোস্ট্যাটিক শক আবহ তৈরি করতে পারে, যা খুব অল্প সময়ে বিপুল পরিমাণ শক্তি স্থানান্তর করে।[৪][৫][৬]

১৯৬৩ সালে ভিয়েতনাম যুদ্ধে সর্বপ্রথম এম১৬ রাইফেল ব্যবহার শুরু। মার্কিন সেনাবাহিনী মূলত ভিয়েতনামের জঙ্গল এলাকার যুদ্ধ কার্যক্রমে এই রাইফেল ব্যবহার শুরু করেছিলো।[৭] ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময়, ১৯৬৯ সালে, পূর্ববর্তী এম১৪ রাইফেলকে সরিয়ে এম১৬ একটি আদর্শ মার্কিন রাইফেলে পরিণত হয়।[৮] তারপরও মার্কিন সেনাবাহিনী ১৯৭০ সাল পর্যন্ত কোনাস, ইউরোপ, ও দক্ষিণ কোরিয়ায় পূর্ববর্তী এ১৪ রাইফেলের ব্যবহার চালু রেখেছিলো। ভিয়েতনাম যুদ্ধের পর থেকেই এই রাইফেলটি মার্কিন সেনাবাহিনীর পদাতিক বাহিনীতে ব্যবহৃত হওয়া শুরু হয়। বর্তমানে এর বিভিন্ন প্রকারভেদসহ রাইফেলটি মোট ১৫ ন্যাটোভুক্ত দেশে ব্যবহৃত হচ্ছে। ৫.৫৬x৪৫এমএম ন্যাটো কার্টিজের গুলি সবচেয়ে বেশি উৎপাদিতও হয় এই রাইফেলের ক্যালিবারে ব্যবহারের উদ্দেশ্যে।[৯]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Ezell, Virginia Hart (November 2001)। "Focus on Basics, Urges Small Arms Designer"National Defense (National Defense Industrial Association)।  |month= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  2. Colt Weapon Systems.
  3. http://www.colt.com/mil/M16_2.asp
  4. American Rifle: A Biography, Alexander Rose (2009) p. 375-376
  5. The SAS Training Manual, Chris McNab, (2002) pp. 108-109
  6. "Scientific Evidence for 'Hydrostatic Shock'", Michael Courtney and Amy Courtney, (2008)
  7. Rose, pp. 380 & 392.
  8. Urdang, p. 801.
  9. "Small Arms–Individual Weapons"। 3। সংগৃহীত 8 November 2010  |month= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • Modern Warfare, Published by Mark Dartford, Marshall Cavendish (London) 1985
  • Afonso, Aniceto and Gomes, Carlos de Matos, Guerra Colonial (2000), ISBN 972-46-1192-2
  • Ezell, Edward Clinton (1984)। The Great Rifle Controversy: Search for the Ultimate Infantry Weapon from World War II Through Vietnam and BeyondHarrisburg, Pennsylvania: Halsted Press। আইএসবিএন 9780811707091 
  • Hughes, David R. (1990)। The History and Development of the M16 Rifle and its CartridgeOceanside, California: Armory Publications। 
  • Hutton, Robert, The .223, Guns & Ammo Annual Edition, 1971.
  • McNaugher, Thomas L. "Marksmanship, Mcnamara and the M16 Rifle: Organisations, Analysis and Weapons Acquisition", http://www.rand.org/pubs/papers/P6306/
  • Pikula, Sam (Major), The ArmaLite AR-10, 1998
  • Rose, Alexander. American Rifle-A Biography. 2008; Bantam Dell Publishing. ISBN 978-0-553-80517-8.
  • Stevens, R. Blake and Edward C. Ezell. (1994). The Black Rifle: M16 Retrospective, Ontario: Collector Grade Publications.
  • Urdang, Laurence, Editor in Chief. The Random House Dictionary of the English Language. 1969; Random House/New York.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]