ইউরাল পর্বতমালা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(উরাল পর্বতমালা থেকে ঘুরে এসেছে)
মানচিত্রে উরাল পর্বতমালার অবস্থান

উরাল পর্বতমালা (ইংরেজি: Ural Mountains, রুশ ভাষায়: Ural’skiye Gory) রাশিয়ার একটি পর্বতমালা। এটি রাশিয়ার উত্তর সীমান্তে উত্তর মহাসাগর থেকে আরম্ভ হয়ে ২৪০০ কিলোমিটার দক্ষিণে কাজাখস্তানের স্টেপ মালভূমিতে গিয়ে শেষ হয়েছে। এটি ইউরোপএশিয়া মহাদেশকে ভাগ করেছে। পর্বতমালাটি মেরুদেশীয়, উত্তর, মধ্য ও দক্ষিণ- এই চার ভাগে বিভক্ত। ৬৪° উত্তর অক্ষাংশের উত্তরে অবস্থিত মেরুদেশীয় উরাল বৃক্ষহীন তুন্দ্রা। উত্তর উরাল (৬৪° উত্তর থেকে ৬১° উত্তর অক্ষাংশ) গড়ে ৩০০ থেকে ৫০০ মিটার উঁচু চূড়াবিশিষ্ট সরু, বৃক্ষহীন একটি পর্বতসারি। এখানে উরালের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ গোরা নারোদনায়া (১৮৯৪ মিটার) অবস্থিত। অন্যান্য উত্তরাঞ্চলীয় পর্বতশৃঙ্গের মধ্যে আছে সাবলিয়া, তেলপোস-ইজ, এবং ইশেরিম। এই এলাকায় কেবল লার্চ নামের পাইন জাতীয় গাছ বিক্ষিপ্তভাবে দেখা যায়।

উত্তর উরালের দক্ষিণ সীমা থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে অনেকগুলি মালভূমি প্রসারিত হয়েছে, যেগুলিতে প্রশস্ত, সমতল, জলাভূমিবহুল উপত্যকার দেখা মেলে। মধ্য উরালের (৬১° থেকে ৬০° উত্তর অক্ষাংশ) প্রায় সমস্ত এলাকা ঘন পাইন জাতীয় অরণ্যে আবৃত। কয়েক সারি উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় পর্বতসারি মধ্য উরালের উত্তর সীমানা নির্দেশ করে। আর এর দক্ষিণ সীমানায় আছে ৩০০ মিটার থেকে ৬০০ মিটার উচ্চতাবিশিষ্ট ও গভীর গিরিখাতের মাধ্যমে পৃথক কতগুলি পাহাড়। কোন্‌জাকোভ্‌স্কিয়ি কামেন (১৫৭১ মিটার) মধ্য উরালের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ। মধ্য উরালের বৈশিষ্ট্য এর ঘন অরণ্য ও উর্বর মাটির উপত্যকাসমূহ।

মধ্য উরালের দক্ষিণে (৫৫° থেকে ৫১° উত্তর অক্ষাংশ পর্যন্ত) তিনটি সমান্তরাল পর্বতসারি দক্ষিণ উরাল নামে পরিচিত। এদের মধ্যে প্রথমটি, যাকে মূল উরাল পর্বতমালা বলা হয়, একটি অপেক্ষাকৃত নিচু পর্বতসারি যার উচ্চতা ৬৭০ মিটার থেকে ৮৫০ মিটার পর্যন্ত হয়। এর পশ্চিমে খানিকটি উঁচু ও অনেক নদীসমৃদ্ধ একটি সারি আছে, যার উচ্চতা সর্বোচ্চ ১৫৯৪ মিটার পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছে। এরও পশ্চিমে আরেকটি প্রায় একই উচ্চতার পর্বতসারি আছে। এই তিনটি পর্বতসারিই পর্ণমোচী অরণ্যে আবৃত এবং উন্নত পশু চারণভূমিতে সমৃদ্ধ। ৫১° উত্তর অক্ষাংশের দক্ষিণেও ভোলগা নদীর দিকে উরাল ওব্‌শচিয়ি সির্ট নামে অগ্রসর হয়, এবং এটি মূলত ৩২০ কিমি প্রস্থের ও সর্বোচ্চ ৪৬০ মিটার উচ্চতার কতগুলি মালভূমির নিয়ে গঠিত। উরাল নদীর দক্ষিণে এই পর্বতমালা কতগুলি স্বাধীন পর্বতমালার দলে পরিণত হয়।

বর্ষায় উরালের একটি অরণ্য

ভৌগোলিকভাবে উরাল একটি প্রাচীন পর্বতমালার ক্ষয়ে যাওয়া রূপ। প্রায় ২৫ কোটি (২৫০ মিলিয়ন) বছর আগে প্যালেয়োজোইক যুগে এই পর্বতমালাটি গঠিত হয়। পর্বতমালাটির বিভাজিত রূপ এর প্রাচীন ইতিহাসের বিভিন্ন চড়াই উৎরাইয়ের সাক্ষ্য বহন করছে।

মধ্য ও দক্ষিণ উরালে গুরুত্বপূর্ণ শিল্প এলাকা অবস্থিত। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এখানে সোভিয়েত ইউনিয়ন প্রচুর শিল্পকারখানা স্থাপন করে, যেগুলি সামরিক এলাকা থেকে অনেক দূরের একটি এলাকা থেকে অস্ত্র উৎপাদনকেন্দ্র হিসেবে কাজ করত। এখানকার কিশতিম শহরের কাছে অবস্থিত মায়াক কম্পলেক্স ১৯৪৮ সাল থেকে নিউক্লীয় অস্ত্রশস্ত্র উৎপাদন করে আসছে। মায়াকেই প্রথম সোভিয়েত পারমাণবিক বোমার কাঁচামাল প্রস্তুত হয় এবং ১৯৪৯ সালের আগস্টে বোমাটির বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। মায়াকে ১৯৪৯, ১৯৫৭১৯৬৭ সালে তিন দফায় নিউক্লীয় বর্জ্য দূষণের ঘটনা ঘটে। সম্মিলিতভাবে এগুলির বিকিরণ, চেরনোবিল বিপর্যয়ের ফলে সৃষ্ট বিকিরণের প্রায় দশগুণ। ১৯৫০-এর দশকে মায়াকের নিউক্লীয় বর্জ্য নিকটস্থ কারাচাই হ্রদে ফেলা হতো, এবং এর ফলে শীঘ্রই হ্রদটি তেজস্ক্রিয় হয়ে পড়ে। ১৯৬০-এর দশকের শেষ দিকে শ্রমিকেরা হ্রদটিকে পাথর ও পাটি দিয়ে ভরাট করা শুরু করে এবং মধ্য ৯০-এর দশকের মধ্যে এটিকে কংক্রিট চাপা দেয়ার কথা থাকলেও ১৯৯১ সালে এক সরকারি কমিশন সিদ্ধান্ত নেয় যে এটা করলে ভূগর্ভস্থ পানির তেজস্ক্রিয়তা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। উরালে এখনও তেজস্ক্রিয় বর্জ্য কীভাবে পরিষ্কার করা হবে এ নিয়ে বিতর্ক চলছে।

উরাল পর্বতমালার আশেপাশের এলাকায় লোহা ও কয়লার বিরাট মজুত আছে। এছাড়াও এখানে ক্রোমিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, তামা, দস্তা, বক্সাইট, প্লাটিনাম, রূপা, সোনা ইত্যাদির বড় মজুত বিদ্যমান। উরালের ঠিক পূর্বে একটি বড় খনিজ তেল উৎপাদনকারী এলাকা অবস্থিত। উরাল এলাকার গুরুত্বপূর্ণ শিল্পশহরগুলির মধ্যে মাগনিতোগোরস্ক, ইয়েকাতেরিনবুর্গ, চেলিয়াবিন্‌স্ক, পের্ম ও নিজনিয়ি তাগিল অন্যতম।