ইয়োহান ফ্রিডরিশ মালিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জে. এফ. মালিন
Johann Friedrich Gmelin.jpg
ইয়োহান ফ্রিডরিশ মালিন (১৭৪৮–১৮০৪)
জন্ম (১৭৪৮-০৮-০৮)৮ আগস্ট ১৭৪৮
টুবিঙেন, হলি রোমান সাম্রাজ্য
মৃত্যু ১ নভেম্বর ১৮০৪(১৮০৪-১১-০১) (৫৬ বছর)
গটিঙেন, হলি রোমান সাম্রাজ্য
জাতীয়তা জার্মান
কর্মক্ষেত্র প্রকৃতিবিদ, উদ্ভিদবিদ এবং পতঙ্গবিদ
প্রতিষ্ঠান গটিঙেন বিশ্ববিদ্যালয়
টুবিঙেন বিশ্ববিদ্যালয়
প্রাক্তন ছাত্র টুবিঙেন বিশ্ববিদ্যালয়
পরিচিতির কারণ পাঠ্যপুস্তক
লেখক সংক্ষেপণ (উদ্ভিদবিদ্যা) J.F.Gmel.

ইয়োহান ফ্রিডরিশ মালিন (আগস্ট ৮, ১৭৪৮ - নভেম্বর ১, ১৮০৪) একজন প্রখ্যাত জার্মান প্রকৃতিবিদ, উদ্ভিদবিদ, শম্বুকবিদ, উভচরবিদ এবং পতঙ্গবিদ

শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

ইয়োহান ফ্রিডরিশ মালিনের কবর, গটিঙ্গেন, শেল্টেনহামপারক

ইয়োহান ফ্রিডরিশ মালিন ১৭৪৮ সালে জার্মানির টুবিঙ্গেনে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন ফিলিপ ফ্রিডরিশ মালিনের জ্যেষ্ঠ পুত্র।[১] তাঁর পিতার অধীনে টুবিঙেন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি মেডিসিন বিষয়ে অধ্যয়ন করেন। ১৭৬৮ সালে তিনি এম. ডি. ডিগ্রী লাভ করেন। তাঁর থিসিসের বিষয় ছিল Irritabilitatem vegetabilium, in singulis plantarum partibus exploratam ulterioribusque experimentis confirmatam.[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৭৬৯ সালে মালিন টুবিঙেন বিশ্ববিদ্যালয়ে মেডিসিন বিষয়ে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে যোগ দেন। ১৭৭৩ সালে তিনি গটিঙেন বিশ্ববিদ্যালয়ে দর্শনের অধ্যাপক ও মেডিসিন বিষয়ে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে ১৭৭৮ সালে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন, রসায়ন, উদ্ভিদবিদ্যা ও খনিজবিদ্যার অধ্যাপক হন। ১৮০৪ সালে গটিঙেনে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

মালিন তাঁর কর্মজীবনে মেডিসিন, রসায়ন, উদ্ভিদবিদ্যাখনিজবিদ্যার উপর অসংখ্য পাঠ্যপুস্তক রচনা করেন। তিনি সিস্টেমা নেচারির ১৩তম সংস্করণ ১৭৮৮ সালে প্রকাশ করেন। প্রচুর নতুন প্রজাতির উভচর, সরীসৃপপতঙ্গ তিনি আবিষ্কার করেন। তাঁর নামে একটি উদ্ভিদের নাম রাখা হয়েছে Artemisia gmelinii

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

  • Gmelin, Johann Friedrich; Ferdinand Christoph Oetinger (1768)। Irritabilitatem vegetabilium, in singulis plantarum partibus exploraam ulterioribusque experimentis confirmatam। Thesis Tübingen। ওসিএলসি 10717434  |coauthors= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  • Allgemeine Geschichte der Gifte, দুই খণ্ড, ১৭৭৬/১৭৭৭
  • Allgemeine Geschichte der Pflanzengifte, ১৭৭৭
  • Allgemeine Geschichte der mineralischen Gifte, ১৭৭৭
  • Einleitung in die Chemie, ১৭৮০
  • Beyträge zur Geschichte des teutschen Bergbaus, ১৭৮৩
  • Ueber die neuere Entdeckungen in der Lehre von der Luft, und deren Anwendung auf Arzneikunst, ১৭৮৪
  • Grundsätze der technischen Chemie, ১৭৮৬
  • Grundriß der Pharmazie, ১৭৯২
  • Geschichte der Chemie, ১৭৯৯
  • Allgemeine Geschichte der thierischen und mineralischen Gifte, ১৮০৬

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mainz, Vera V.; Gregory S. Girolami (1998)। "Genealogy Database Entry: Gmelin, Johann Friedrich"School of Chemical Sciences Web Genealogy। University of Illinois, Champaign-Urbana। সংগৃহীত 2009-01-01  |coauthors= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  2. Irritabilitatem vegetabilium in singulis plantarum partibus exploratatam

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]