ইউটোপিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অন্য ব্যবহারের জন্য, দেখুন ইউটোপিয়া (দ্ব্যর্থতা নিরসন)

ইউটোপিয়া বা কল্পলোক /juːˈtpiə/ (ইংরেজি: Utopia) হলো একটি সম্প্রদায় বা সমাজ যেটি উচ্চমাত্রায় কাঙ্খিত বা পরিপূর্ণ বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। থমাস মুর ১৫১৬ খ্রিষ্টাব্দে তার ইউটোপিয়া নামক বইয়ের জন্য সর্বপ্রথম এই নামটি গ্রীক থেকে উদ্ভাবন করেন। এখানে আটলান্টিক মহাসাগরের একটি কাল্পনিক দ্বীপ সম্প্রদায়ের বর্ণনা দেয়া হয়।

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

ইউটোপিয়া শব্দ দ্বারা মূলত বোঝায় কল্পলৌকিক আদর্শ স্থান। এর মাধ্যমে বোঝানো হয় কোনো উপন্যাস বা দার্শনিক চিন্তাভাবনাসম্পন্ন কোনো রচনাকে যেখানে একটি আদর্শ স্থান বা কল্পলোকের বিবরণ দেয়া হয়। মূল গ্রিক শব্দ:eutopos অর্থ সুরম্য স্থান। এটিকে কল্পভুবন বা কল্পস্বর্গও বলা হয়।[১] আধুনিককালে ইউটোপিয়া বলতে সেই শ্রেণির কথাসাহিত্য বুঝি যা একটি আদর্শ রাষ্ট্র ও জীবনব্যবস্থার চিত্র তুলে ধরে। এর সর্বশ্রেষ্ঠ দৃষ্টান্ত সম্ভবত প্লেটোর রিপাবলিক। পরবর্তীকালের এই প্রকারের রচনায় কখনো কখনো নিছক স্বপ্নকল্পনা প্রশ্রয় পেয়েছে, কখনো কখনো ভবিষ্যতে সামাজিক ও প্রযুক্তিগত উন্নতির মধ্য দিয়ে নতুন জীবনে যে-উত্তরণ বাস্তবসম্মতভাবে আকাঙ্ক্ষিত তার রূপরেখা আঁকা হয়েছে। এইসব গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে ফ্রান্সিস বেকনের নিউ আটলান্টিস, এডওয়ার্ড বেলামির লুকিং ব্যাকওয়ার্ড, উইলিয়াম মরিসের নিউজ ফ্রম নোহোয়্যার এবং জেমস হিল্টনের লস্ট হরাইজন[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সুরভী বন্দ্যোপাধ্যায়, সাহিত্যের শব্দার্থকোশ, পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমি, ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৯, কলকাতা, পৃষ্ঠা-৩৬-৩৭
  2. কবীর চৌধুরী, সাহিত্যকোষ, মাওলা ব্রাদার্স, ঢাকা, অষ্টম মুদ্রণ, ফেব্রুয়ারি, ২০১২, পৃষ্ঠা-১২৮।